বৃহস্পতিবার-১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ-৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ-৯ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

এ্যারাইজ এ জেড ৭০০৬ ধানের বীজ তুলে দেন খাগড়াছড়ি কৃষি বিভাগের উপ-পরিচালক মো. মর্তুজা আলী

মানিকছড়ি প্রতিনিধি
“ভালো ধান,ভালো জীবন” এই প্রতিপাদ্যে মানিকছড়িতে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও মেসার্স জাহাঙ্গীর ট্রেডার্স এর উদ্যোগে পালিত হয়েছে ‘এ্যারাইজ এ জেড ৭০০৬ ধানের মাঠ দিবস’। এতে শতাধিক কৃষকের হাতে হাইব্রীড এ্যারাইজ এ জেড ৭০০৬ ধানের বীজ তুলে দিয়েছেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি খাগড়াছড়ি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মো. মর্তুজ আলী।
৭ নভেম্বর বিকাল সাড়ে ৩টায় মানিকছড়ি উপজেলার ১২ নং কৃষি বøক বড়ডলু বিলে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও মেসার্স জাহাঙ্গীর ট্রেডার্স এর আয়োজনে অনুষ্টিত হয় ‘এ্যারাইজ এ জেড ৭০০৬ ধানের মাঠ দিবস অনুষ্ঠান। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো. নাজমুল ইসলাম মজুদমার এর সভাপতিত্বে অনুষ্টিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, খাগড়াছড়ি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মো. মর্তুজ আলী। বিশেষ অতিথি ছিলেন, বায়রা ক্রপ সাইন্স লিমিটেড এর ফিল্ড সুপারভাইজার বিশ্ব নাথ মালাকার ও মেসার্স জাহাঙ্গীর ট্রেডার্স এর স্বত্বাধিকারী এস.এম জাহাঙাগীর আলম ও উপজেলা কৃষকলীগ সভাপতি মো. শাহ আলম প্রমুখ। সহকারী কৃষি কর্মকর্তা উমা প্রসাদ বড়–য়ার সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন সহকারী কৃষি কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার নাথ ।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি কৃষিবিদ মো. মর্তুজ আলী বলেন, ভালো বীজ,ভালো ধান,ভালো সেবা যতœ, তবেই আসবে রতœ। কৃষিনির্ভর দেশ বাংলাদেশ। এখানকার পাহাড়ে যে পরিমাণ ধান্য জমি রয়েছে সেখানে যদি নতুন নতুন প্রযুক্তি নির্ভর চাষাবাদে আপনারা এগিয়ে আসেন,তাহলে আপনার পরিবারে যেমন খাদ্যের অভাব থাকবে না। তেমনি দেশেও খাদ্য সংকট হবে না। তিনি আরো বলেন, বিশ্বের ১শত ৪১টি দেশের খাদ্য চাহিদা পূরণে নতুন নতুন আবিস্কার,গবেষণায় শীর্ষে থাকা ‘বায়রা ক্রপ সাইন্স লিমিটেড’ আমাদের দেশেও সরকারের পাশাপাশি কৃষি উৎপাদনে কাজ করছে। বাজারে নানা প্রজাতির হাইব্রীড ধানের মধ্যে বায়রার এ্যারাইজ এ জেড ৭০০৬ ধানটি ব্যাপক ফলনে সহায়ক ফসল। প্রতি ১একর জমিতে ৬৫-৭০ মণ ধান উৎপাদন সম্ভব। আসুন আমরা আধুনিক প্রযুক্তি সমৃদ্ধ ফসল উৎপাদনে কৃষিবিদ’দের সমন্বয়ে ও পরামর্শে ধান উৎপাদনে কাজ করি।
পরে সভাপতি কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো. নাজমুল ইসলাম মজুমদার বলেন, আমরা কৃষিবিদ’রা আপনাদের সেবায় নিয়োজিত। যে কোন বিপদে ফসলের রোগ-বালাই দেখামাত্র আমাদের জানান। একটু সঠিক পরামর্শে দেখবেন অনেক জটিল সমস্যা নিরসনসহ ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধিতে সহায়ক হবে। অহেতুক কোন সার ওষধ বিক্রেতার পরামর্শ নেবেন না। কৃষিবিদ’দের পরামর্শ নিয়ে বাজার থেকে ওষধ কিনবেন, লাভবান হবেন।
সভা শেষে একশত কৃষকের হাতে দুই কেজি করে এ্যারাইজ এ জেড ৭০০৬ ধানের বীজ তুলে দেন খাগড়াছড়ি কৃষি বিভাগের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মো. মর্তুজ আলীসহ অন্য অতিথিরা।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email
Share on telegram
Telegram
Share on skype
Skype