বৃহস্পতিবার-১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ-৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ-৯ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

চট্টগ্রাম নাগরিক ফোরামের মানববন্ধনে মৃত্যুদন্ড নয় নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের বিচারকার্য দ্রুত করা প্রয়োজন।

জুবাইর চট্টগ্রাম

চট্টগ্রাম নাগরিক ফোরামের মানববন্ধনে বক্তারা শুধু মৃত্যুদন্ড নয় নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের বিচারকার্য দ্রুত করা প্রয়োজন। । চট্টগ্রাম নাগরিক ফোরামের উদ্যোগে নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের বিচারকার্য দ্রুত করার দাবীতে  ১২ই অক্টোবর ২০২০ইং তারিখে বিকাল ৩টায় চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে ফোরামের মহাসচিব মো. কামাল উদ্দিন এর নেতৃত্বে এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। উক্ত মানববন্ধনে ফোরামের চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার মনোয়ার হোসেন লিখিত বক্তবে জানান, বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে নারীদের উপর নির্যাতন, ধর্ষণ এমনকি গণ- ধর্ষণ এর যে ঘটনা ঘটেছে তাতে আমরা জাতি হিসেবে এবং সচেতন নাগরিক হিসেবে সত্যি ভীষণ লজ্জা বোধ শুধু নয়, আজ আমরা নিজেদেরকে ব্যর্থ নাগরিক মনে করছি। যারা নির্যাতিত বা ধর্ষিত হচ্ছেন তাদের সামাজিক মর্যাদা ও আত্মসম্মান রক্ষা করা সবার দায়িত্ব। আমি চট্টগ্রাম নাগরিক ফোরামের পক্ষে দাবি জানিছি এবং প্রস্তাব করছি- ভিক্টিমের বা তার অভিভাবকদের লিখিত সম্মতি ছাড়া পরিচয় সামাজিকভাবে ও মিডিয়াতে প্রকাশ করা যাবে না এবং ভিকটিমদের নিরাপত্তা দেয়া, মানসিক এ সামাজিক পুনর্বাসন ও সরকারীভাবে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। বক্তবে ধর্ষণকারীকে মৃত্যুদন্ডে শাস্তির রায়েকে স্বাগত জানান তিনি আর বলেন, শুধু মৃত্যুদন্ড নয় নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের বিচারকার্য দ্রুত করা প্রয়োজন। সাবেক প্যানেল মেয়র রেখা আলম বলেন, নারী ধর্ষণ, নারী নির্যাতনের মত জঘন্যতম ঘটনার দায়ী ব্যক্তিদের শাস্তির আওতায় আনতে হবে। সমাজের প্রতিটি সচেতন ব্যক্তিরা এই ধরনের জঘন্য কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে। শুধু নারী নয়, নারী পুরুষ একসাথে প্রতিবাদ-প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। নাগরিক ফোরামের ভাইস চেয়ারম্যান কণ্ঠ শিল্পি শাহরিয়ার খালেদ বলেন, চট্টগ্রাম নাগরিক ফোরাম সবসময় নাগরিকদের মৌলিক অধিকারের কথা বলে থাকে। আজকেও রাজপথে মানববন্ধনের মাধ্যমে নারী ধর্ষণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাচ্ছি। আগামীতেও যে কোন অন্যায় কাজ সংগঠিত হলে নাগরিক ফোরাম প্রতিবাদ করে যাবে। চট্টগ্রাম নাগরিক ফোরামের মহাসচিব মো. কামাল উদ্দিন বলেন, নারীরা শারীরিকভাবে একবার ধর্ষীত হওয়ার পর মানসিকভাবে একাধিক ধর্ষীত হতে হয়। থানায় মামলা নেওয়া হতে শুরু করে মেডিক্যাল রিপোর্ট তথা আদালতে বিচার কার্যে ধর্ষীতাকে অসংখ্যবার লাঞ্চনার শিকার হতে হয়। শুধু মৃত্যুদন্ড দিলে হবে না ধর্ষীতাকে মানসিক সামাজিক নিরাপত্তা দিতে হবে। অনুষ্ঠান পরিচালনা ও ফোরামের চেয়ারম্যানের লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন- ডা: শেখ জাহেদ। মানববন্ধনের প্রতি সংগতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন মানবাধিকার ফোরামের নেতা সাংবাদিক আক্তার উদ্দিন রানা ও চট্টগ্রাম বেকারী মালিক সমিতির নেতা আশীষ চৌধুরী এবং মহিলা আওয়ামী লীগের নেত্রী জাহানারা, নারী উদ্দোক্তা নিলুফা আক্তার নিলু, রেশেদা আক্তার শিমু। অন্যানদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- ফোরামের নারী নেত্রী কানিজ ফাতেমা, ডেন্টিস শিমুল সেন, ডাক্তার শোয়াইবুল ইসলাম, লাভলী দিও, রিনা বেগম, সাদিয়া আক্তার, জান্নাতুল ফেরদৌস নিশু:, সীমা আক্তার, পায়েল, চামেলী, শাহরিয়ার আলম তাউসিফ, জাফর আলম রবিন, তাসলিম খাঁ, মোহাম্মদ মঈনুদ্দিন, মোহাম্মদ ইসমাইল, গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, অসীম বড়ুয়া, তসলিম হাসান হৃদয়, নারী নেত্রী বুলবুল আক্তার, রিনা বেগম,রোটারিয়ান মোঃ ইমতিয়াজ আহমেদ এসিএ প্রমুখ। বক্তারা আরও বলেন, ধর্ষণ কারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদন্ড যেমন দেওয়া হবে তেমনি মিথ্যা মামলা কারীর জন্য মৃত্যুদন্ডের বিধান রাখা প্রয়োজন। যেন দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হয়।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on email
Email
Share on telegram
Telegram
Share on skype
Skype